Home News অন্য চেহারায় বলয়হীন শনি

অন্য চেহারায় বলয়হীন শনি

শনির বলয়ব্যবস্থা গ্রহটি থেকে দুই লাখ ৮২ হাজার কিলোমিটার পর্যন্ত ছড়িয়ে।তবে সাতটি প্রধান বলয়ের মধ্যে উল্লম্ব উচ্চতা প্রায় ৩০ ফুট। শনির বলয়গুলো এক অতি আশ্চর্য ধরনের কাঠামো।

by Newsroom
শনির বলয়ব্যবস্থা গ্রহটি থেকে দুই লাখ ৮২ হাজার কিলোমিটার পর্যন্ত ছড়িয়ে।তবে সাতটি প্রধান বলয়ের মধ্যে উল্লম্ব উচ্চতা প্রায় ৩০ ফুট।

স্পেসটেটর ডেস্ক।।

আমাদের সৌরজগতের গ্রহগুলোর মধ্যে সবচেয়ে দর্শনীয় গ্রহ শনি। সৌরজগতের কেন্দ্র সূর্য থেকে ষষ্ঠ এই গ্রহকে চারপাশের বলয়গুলো দিয়েছে এক অনন্য রূপ। এই ‘আইকনিক’ বলয়গুলোর জন্যই বিখ্যাত শনি। এ কথাগুলো কমবেশি সবার জানা। তবে শনি সম্পর্কে নতুন এবং রীতিমতো চমকে দেওয়ার মতো খবর হচ্ছে, বিখ্যাত এই বলয়গুলো আর বছর দেড়েক পরই আমাদের চোখের সামনে থেকে হাওয়া হয়ে যাবে। ব্যাপারটা যদিও ঘটবে এক ধরনের দৃষ্টিবিভ্রমের কারণে, কিন্তু শনিকে বলয়হীন দেখার কথা ভাবতেও কঠিন লাগে।

অন্য চেহারায় বলয়হীন শনিসৌরজগতের গ্রহগুলো গঠিত হয়েছিল ৪৬০ কোটি বছর আগে। কিন্তু বিজ্ঞানীদের মতে, গ্রহের বলয়জাতীয় কাঠামোগুলো তুলনামূলকভাবে নতুন। নাসার বিশেষজ্ঞদের গবেষণা বলে, শনির বলয়গুলো আসলে অনেক ধূমকেতু এবং গ্রহাণুর টুকরার সমষ্টি, যেগুলো বিশাল গ্রহটিতে পৌঁছানোর আগেই এর শক্তিশালী মাধ্যাকর্ষণের চাপে ভেঙে যায়। বলয়গুলো কোটি কোটি ছোট বরফ এবং শিলার গুঁড়া দিয়ে তৈরি। তার ওপর রয়েছে ধূলিকণার মতো বিভিন্ন উপাদানের প্রলেপ।

শনির বলয়ব্যবস্থা গ্রহটি থেকে দুই লাখ ৮২ হাজার কিলোমিটার পর্যন্ত ছড়িয়ে।তবে সাতটি প্রধান বলয়ের মধ্যে উল্লম্ব উচ্চতা প্রায় ৩০ ফুট। শনির বলয়গুলো এক অতি আশ্চর্য ধরনের কাঠামো। মোটামুটি মানের টেলিস্কোপের মাধ্যমেও স্পষ্টভাবেই চোখে পড়ে সেগুলো। বহু শতাব্দী ধরে জ্যোতির্বিজ্ঞানী ও মহাকাশে উৎসাহীদের মুগ্ধ করেছে এরা। সাম্প্রতিক গবেষণায় দাবি করা হচ্ছে, এই চমকপ্রদ কাঠামোগুলো একসময় অদৃশ্য হয়ে যাবে।

বলয়গুলো সত্যি সত্যি হারিয়ে যাওয়ার বিষয়টি লাখ লাখ বছর পরে ঘটবে। কিন্তু বলয়গুলোর ছবি তুলতে আগ্রহীদের ২০২৫ সালেই হতাশ হতে হবে। কারণ ‘অপটিক্যাল বিভ্রমের’ কারণে পৃথিবীর মানুষের চোখ থেকে অদৃশ্য হয়ে যাবে বলয়গুলো।

সৌরজগতের শনি গ্রহ পৃথিবীর সঙ্গে নিখুঁতভাবে এক রেখায় নেই। পৃথিবীর তুলনায় প্রায় ৯ ডিগ্রি কোণে হেলে আছে। ২০২৪ সাল নাগাদই এই কোণটি প্রায় ৩.৭ ডিগ্রি কমে যাবে। পৃথিবী থেকে দূরে সরে যাওয়ার কারণে এক বছর পরে শনির অক্ষটি তার বর্তমান হেলানো অবস্থান থেকে উল্লম্ব অবস্থান নেবে। এতে গ্রহের বলয়গুলোকে পৃথিবীর সমান্তরালে পাতলা অনুভূমিক পাতের মতো দেখাবে। এতে বলয়গুলোকে দেখা যাবে দৃষ্টির সমান্তরালে রাখা কাগজের শিটের মতো, যা প্রায় চোখেই পড়বে না। ঘটনাটা চলবে ২০৩২ সাল পর্যন্ত। তখন ধীরে ধীরে বলয়গুলোর নিচের অংশ দেখা যাবে।

 

আরও পড়ুন: মহাকাশের বিস্তৃত রঙিন ছবি তুলল ইউক্লিড স্পেস টেলিস্কোপ

Related News